সংবাদপত্র রচনা Class 6, 7, 8, 9, 10 | সংবাদপত্র রচনার ২০ পয়েন্ট

সংবাদপত্র রচনা

ভূমিকা: সংবাদপত্রকে বলা হয় দেশ ও সমাজের দর্পণ। কোন দেশ কতটা গণতান্ত্রিক কতটা মানবিক মানবিক অধিকার কোন দেশ বা সমাজে, কতটুকু স্বীকৃত ও প্রতিষ্ঠিত সংবাদপত্র নামক দর্পণে তা প্রকাশ পায়। সাংবাদিক ও কলামিস্টদের বলা হয় বিশ্বের চোখ ও কান। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, মত প্রকাশের স্বাধীনতা, সত্যের অকপট প্রকাশের স্বাধীনতা, বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ সাংবাদিকতা, ক্ষুদ্র স্বার্থবােধের জলে। দেশ, জাতি, সমাজ ও মানবকল্যাণের আদর্শে লেখনী চালনার স্বাধীনতা গণতান্ত্রিক সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রধান স্তম্ভ। 
 
সংবাদপত্র রচনা Class 6, 7, 8, 9, 10 | সংবাদপত্র রচনার ২০ পয়েন্ট
সংবাদপত্র রচনা Class 6, 7, 8, 9, 10 | সংবাদপত্র রচনার ২০ পয়েন্ট
 
গণতন্ত্র ও সংবাদপত্র: বর্তমান পৃথিবীতে গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক আদর্শ ব্যাপক প্রসার লাভ করেছে। সংবাদপত্র ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা আজ | সমাজের ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থার অপরিহার্য অঙ্গ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। গণতন্ত্রকে অর্থপৰ্ণ করার জন্যে তাই প্রয়ােজন সাৰিক উদ্যো, সকল মহল থেকে এক্ষেত্রে সংবাদপত্রের ভূমিকা অত্যন্ত গৌরবজনক। গণতান্ত্রিক সমাজে সঠিক তথ্য বিতরণ করে সংবাদপত্র সমাজকে সজাগ রাখতে পারে। সম্পাদকীয় এবং উপসম্পাদকীয়তে সৃষ্টিধর্মী বক্তব্য তুলে। ধরে সমাজকে রাখতে পারে প্রাণবন্ত, বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য উপস্থাপন করে জাতীয় সমস্যা সমাধানে একাধিক পরিকল্পনা তুলে ধরতে পারে। ব্যক্তিগত স্বার্থের উর্ধ্বে সমষ্টিগত স্থান নির্ধারণ করে সংবাদপত্র এবং সাংবাদিকরা রাজনীতিকে সমাধানমূলক, সৃজনশীল এবং গণমুখী কর্মকাণ্ডে রূপায়িত করতে পরে। জাতীয় সমস্যাকে জাতীয় পর্যায়ে বিস্তৃত করে টেনে আনতে পারেন নেতা-নেত্রীর দলীয় কার্যালয়ের বাইরে মুক্ত আলােয়। সংক্ষেপে, গণদাবিকে অগ্রাধিকার দিয়ে দলীয় পর্যায়ে ঐকমত্য রচনায় সহায়তা করে, শাসন-প্রশাসনে সুষ্ঠু পরিবেশের গুরুত্ব তুলে ধরে সংবাদপত্র তার ভূমিকা পালন করতে পারে ।
 
রাজনৈতিক দল ও সংবাদপত্র: গণতন্ত্র মূলত দলীয় শাসন। গণতন্ত্রে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল ক্ষমতায় আসীন হয়। সংখ্যালঘুরা বিরােধী দলের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়। প্রত্যেক দলের রয়েছে সুনির্দিষ্ট নীতি ও, কর্মসূচি। রাজনৈতিক দল তার কর্মসূচি ও নীতির পসরা সাজিয়ে উপস্থিত হয় জনগণের সামনে। রাশি রাশি নীতি ও কর্মসূচির মধ্য থেকে জনগণ বেছে নেয় সঠিকটি। সাথে সাথে বেছে নেয় ঐ সব নীতি ও কর্মসূচির ধারক ব্যক্তি এবং ব্যক্তির সমন্বয়ে সংগঠিত দলকে এ বাছাই প্রক্রিয়াই নির্বাচন। আজকে যারা জনগণের নিকট গ্রহণযােগ্য হলাে না, কালকে হয়তাে তারাই যাবে জনগণের কাছাকাছি। তাই গণতন্ত্রে সরকার এবং বিরােধী দলের সময়ের এবং সযােগের। বিরােধী দল তার বিকল্প নীতি ও কর্মসূচি প্রচার করে এবং সরকারের কার্যক্রমের গঠনমূলক সমালােচনা বা কাছাকাছি আসতে পারে। তাই সরকারের সমালােচনা গণতন্ত্রে স্বীকৃত এক পন্থা । কিন্তু সমালােচনার ভাব, ভাষা ও প্রকৃতি সম্বন্ধে বিভিন্ন দলের মধ্যে থাকতে হয় এক ধরনের ঐকমত্য। একমত্যের অভাবে সমালােচনার স্রোতে ভেসে যেতে পারে সামাজিক সচিতা বাকিগত এবং। সামাজিক পর্যায়ের শ্রদ্ধাবােধ । সংবাদপত্র এক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পার।
 
সরকার ও সংবাদপত্র; মুক্ত আলােয় বুদ্ধি পায় গণতন্ত্র। অন্ধকারে জন্মলাভ করে ষডযন্ত। ষড়যন্ত্রের প্রাসাদ থেকেই বিেরয়ে আসে স্বেরাচার। | গােপনীয়তার আড়ালে একদিকে জন্ম নেয় দুর্নীতিপরায়ণতা অন্যদিকে বৃদ্ধি পায় সরকার এবং সরকারি কর্মচারীদের দায়িত্বহীনতা। অথচ দায়িত্বশীলতাই গণতন্ত্রের ভিত্তি। নীতি ও কার্যক্রমের জন্যে প্রত্যেক কর্মকর্তাকে দায়ী হতে হবে প্রথমে সংসদে, তারপর জনগণের কাছে। এ | দায়িত্বশীলতার মূল্যায়নও হবে মুক্ত আলােয়। সরকারি কার্যক্রমের প্রকৃতি ও সরকারি কর্মচারীদের দায়িত্ব প্রকাশ করে সংবাদপত্র বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করতে পারে। গণতন্ত্রের সাফল্যের জন্যে প্রয়ােজন আইনের শাসন। এ লক্ষ্যে তাই ব্যক্তির প্রতি আনুগত্যের পরিবর্তে আইনের প্রতি আনুগত্য। বৃদ্ধি পেতে হবে। সংবাদপত্র আমাদের সমাজের এ প্রবণতা সম্পর্কে সকলকে অবহিত করতে পারে। 
 
সাংবাদিক ও সংবাদপত্র: সাংবাদিকরা তাদের ভূমিকা পালন করেন অনেক সময় লিখে, কোনাে কোনাে সময় না লিখে, প্রতিবাদে। দেশে সংবাদপত্রে সাংবাদিকদের স্বাধীনতা কতটুকু? পেশার ওপর রয়েছে তাদের পূর্ণ স্বাধীনতা, কিন্তু প্রতিষ্ঠানের ওপর? অনেকক্ষেত্রেই প্রতিষ্ঠান এবং কর্মকর্তাদের সম্পর্ক সম্মানজনক নয়, নেই পারস্পরিক শ্রদ্ধাবােধ । তথাপি পথ রয়েছে, বিশেষ করে সৃজনশীল সাংবাদিকতার। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় রাজনৈতিক দলগুলাে যেমন বিচরণ করে এক স্বীকৃত সীমারেখার মধ্যে, সংবাদপত্রগুলােকেও চলতে হবে অনুমােদিত পন্থায়। এদেশে সংবাদপত্র এবং । সাংবাদিকরা বহুবার এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। সাংবাদিক ও সংবাদপত্রের প্রাতিষ্ঠানিকতার মধ্যে সুসম্পর্ক বিরাজমান থাকলে, শ্রদ্ধাবােধ থাকলে উভয়ের সমন্বিত প্রচেষ্টায় গণতন্ত্রের বিকাশে কার্যকর ভূমিকা রাখা সংবাদপত্রের পক্ষে সহজ হয়। টমাস জেফারসন বলেছেন- যখন কেউ জাতীয় । দায়িত লাভ করে, তখন তাকে জাতীয় স্বার্থের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতে হবে। এ মুহূর্তে এক মহান জাতীয় দায়িত সাংবাদিকদের এমন জাতীয় স্বার্থেই তাদের এ দায়িত্ব পালন করতে হবে। ব্যর্থতা সর্বক্ষেত্রে হতাশার। সাংবাদিকদের ক্ষেত্রে তা গ্লানিকর। 
 
উপসংহার: গণতন্ত্রের জন্যে সংবাদপত্রের স্বাধীনতার কোনাে বিকল্প নেই। গণতন্ত্রের মূল ভিত্তি হলাে জনগণ। আর জনগণের ইচ্ছা-আকাক্ষাআশার প্রতিফলন ঘটে থাকে সংবাদপত্রে । তাই গণতন্ত্রকে সুদৃঢ় ও বিকাশমান রাখতে সংবাদপত্রের স্বাধীনতার বিষয়টি সবাইকে গুরুত্বের সাথে । বিবেচনা করতে হবে।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url